সংবাদ শিরোনাম
DSE

ইসিআর মেশিন চালানো শিখলেন উন্নয়ন মেলায়

nbr

পুরান ঢাকার কেমিকেল ব্যবসায়ী শরিফুল ইসলাম। নতুন প্রতিষ্ঠান খুলেছেন। প্রতিষ্ঠানে ইসিআর (ইলেকট্রনিক ক্যাশ রেজিস্টার) মেশিন বসাতে চান। কিন্তু ব্যবহার জানেন না।

মঙ্গলবার (১০ জানুয়ারি) রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে উন্নয়ন মেলায় এসে এনবিআর স্টলে এসে পেয়ে গেলেন সমাধান। জানলেন ইসিআর ব্যবহার, কোন কোম্পানির ইসিআর মেশিন ভালো।

শরিফুল ইসলাম বলেন, ভ্যাট তো আমি না ক্রেতা দেবে। তাহলে আমার হিসাব রাখতে অসুবিধা কোথায়? নিজ দায়িত্ব থেকে সঠিকভাবে ভ্যাট দিতে ইসিআর ব্যবহার করতে চাই।

মেলায় ঘুরতে এসে মাত্র ৫ মিনিটে ই-টিআইএন রেজিস্ট্রেশন ও সনদপত্র পেয়ে খুশি আজিমপুরের বাসিন্দা দেলোয়ার হোসেন। ই-টিআইএন সম্পর্কে উনার ধারণা পাল্টে গেছে সেবা পেয়ে।

দেলোয়ার হোসেন বলেন, ই-টিআইএন নেয়ার ক্ষেত্রে আমার এক সহকর্মী ব্যাপক ভয় দেখিয়েছেন। অনেক কাগজ প্রয়োজন হয়, অনেক তথ্য দিতে হয়, টাকা লাগে।

তিনি বলেন, উন্নয়ন মেলায় শুধু জাতীয় পরিচয়পত্র আর মোবাইল নম্বর দেয়ার পর মাত্র ৫ মিনিটে রেজিস্ট্রেশন, সনদপত্র পেয়ে খুবই ভালো লাগছে। এমন করসেবা পেয়ে খুবই ভালো লাগছে।

স্টলে এনবিআর সদস্য কালিপদ হাওলাদার বলেন, মেলায় ই-টিআইএন, রিটার্ন দাখিল সংক্রান্ত তথ্য, ভ্যাটের তথ্য, ভ্যাট অনলাইন, কাস্টমস সংক্রান্ত সকল সেবা দেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, এনবিআরের সকল সেবা কত সহজে দেয়া হচ্ছে সে সেবা সম্পর্কে মানুষের ভ্রান্ত ধারণা দূর করতে উন্নয়ন মেলায় অংশগ্রহণ। বেশ ভালো সাড়া পাওয়া যাচ্ছে।

স্টলে ইসিআর সেবা প্রদানকারী ক্রিস্টাল এজেন্সির আইটি এক্সিকিউটিভ এশা আক্তার জলি বলেন, ইসিআর, পস মেশিনের ব্যবহার দেখানো হচ্ছে।

স্টলের এনবিআরের সিস্টেমস ম্যানেজার মো. শফিকুর রহমান বলেন, কর সংক্রান্ত সেবা সম্পর্কে জানতে সব বয়সের মানুষ বেশ আগ্রহী। কর সম্পর্কে জানতে মেলায় আগত দর্শনার্থীদের চেয়ে শিক্ষার্থীদের বেশি আগ্রহ দেখা গেছে। আমরা নিরলস সেবা দিয়ে যাচ্ছি।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড প্রথমবারের মতো ঢাকাসহ সারাদেশে উন্নয়ন মেলায় অংশ নিয়েছে। মেলায় ই-টিআইএন, ট্যাক্স ও ভ্যাট অনলাইন, কাস্টমসের বিভিন্ন সেবার বিষয় তুলে ধরা হচ্ছে।