সংবাদ শিরোনাম
DSE

অব্যাহত পতনে সূচক কমেছে ১১৯ পয়েন্ট

Zahidul shahar bazar

টানা চতুর্থ কার্যদিবসে কমেছে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) লেনদেন। অব্যাহত দর পতনে এসময় ডিএসই’র সার্বিক মূল্য সূচক কমেছে ১১৯ পয়েন্ট।

এদিকে মঙ্গলবার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) লেনদেনে ব্যাপক পতন হয়েছে। এদিন সিএসই’র সার্বিক লেনদেন কমেছে ২০ কোটি টাকা। ডিএসই ও সিএসই’র বাজার পর্যালোচনায় এ তথ্য জানা গেছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, ডিএসইতে লেনদেন হওয়া কোম্পানি ও ফান্ডগুলোর মধ্যে দর বেড়েছে ১১৩টির, দর কমেছে ১৫৪টির ও দর অপরিবর্তিত ছিল ৬৮টি প্রতিষ্ঠানের। এসময় ডিএসইতে ১২ কোটি ৩৮ লাখ ৬৪ হাজার ৩৪৯টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

টাকার অংকে এদিন ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৪৪৮ কোটি ১২ লাখ টাকা। এর আগের কার্যদিবসে (সোমবার) ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ৪৬৬ কোটি ৫৫ লাখ টাকা।

দিনশেষে ডিএসই’র প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স ১১.৯৭ পয়েন্ট কমে ৬১৯৮.৫৩ পয়েন্টে স্থিতি পায়। এসময় ডিএস-৩০ সূচক ১.৩৩ পয়েন্ট বাড়লেও ডিএসইএস সূচক ৩.২২ পয়েন্ট কমেছে।

লেনদেন শেষে টার্নওভার তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছে ড্রাগন সোয়েটার। এসময় কোম্পানিটির ১৯ কোটি ৩৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। টার্নওভারে দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল ইউনাইটেড পাওয়ার, কোম্পানিটির ১৭ কোটি ৭৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ১৩ কোটি ৬৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মধ্যে দিয়ে টার্নওভারের তৃতীয় অবস্থানে ছিল প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল।

এছাড়াও টার্নওভার তালিকায় ছিল- ব্র্যাক ব্যাংক, স্কয়ার ফার্মা,লার্ফাজ সুরমা সিমেন্ট, ন্যাশনাল টিউবস, ইফাদ আটোস, আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজ ও গ্রামীন ফোন।

এদিকে, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) লেনদেন হওয়া ২২৯টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দর বেড়েছে ৭৬ টির, দর কমেছে ১২১টির ও দর অপরিবর্তিত ছিল ৩২টি প্রতিষ্ঠানের। এসময় সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২০ কোটি টাকার।

লেনদেন শেষে সিএসই’র প্রধান মূল্য সূচক সিএসইএক্স কমেছে ৩১.৭৪ পয়েন্ট। এসময় সিএসইতে টার্নওভার তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছে লার্ফাজ সুরমা সিমেন্ট। কোম্পানিটির ১ কোটি ৬২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।