নরসিংহপুর ফেরিঘাটে পারাপারের অপেক্ষায় চার শতাধিক গাড়ি

রোমান আহম্মেদ, (শরীয়তপুর) :

শরীয়তপুরের নরসিংহপুর ফেরিঘাটে পারাপারের জন্য অপেক্ষায় রয়েছে ৪ শতাধিক যানবাহন। বুধবার সকাল থেকে ঘাটে তিন কিলোমিটার রাস্তায় ৪ শতাধিক যানবাহনের যানজট দেখা যায়।

বিআইডব্লিউটিসি’র ম্যানেজার আব্দুল মমিন বলেন, চট্টগ্রামে মাইজভান্ডারী দরবার শরীফের উরস ও বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এই ফেরিঘাটে যানবাহনের চাপ বেড়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি সূত্রে জানা যায়, মোংলা স্থলবন্দর, ভোমরা স্থলবন্দর, বেনাপোল, বরিশাল, খুলনাসহ দক্ষিণাঞ্চলের ২১টি জেলার পরিবহন চট্টগ্রাম-খুলনা মহাসড়কের শরীয়তপুর নরসিংহপুর এলাকার ফেরিঘাট দিয়ে নদী পারাপার হয়ে থাকে।

এখন প্রতিদিন ৪০০ থেকে ৪৩০টি যানবাহন পারাপার হয়।
নরসিংহপুর ফেরিঘাট থেকে খায়েরপট্রি মোড় পর্যন্ত যানবাহনের দীর্ঘ সারি। খায়েরপট্রি থেকে ফেরি টোল প্লাজা পর্যন্ত দুই সারিতে দাঁড়িয়ে রয়েছে যানবাহন। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ফেরি পার হতে আসা যাত্রীবাহী বাস ও পণ্যবাহী ট্রাক খোলা আকাশের নিচে দীর্ঘ সময় ধরে অপেক্ষা করছে।

পারাপারের জন্য তিন চার ঘণ্টা পর বাসগুলো সিরিয়াল পেলেও ট্রাক দুই তিন দিনও সিরিয়াল পাচ্ছে না।

নরসিংহপুর ফেরিঘাটের বিআইডব্লিউটিসি ম্যানেজার আব্দুল মোমিন বলেন, পদ্মা নদীতে স্রোত বৃদ্ধি পাওয়ায় বাংলাবাজার-শিমুলিয়া রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। অন্য দিকে মাইজভান্ডারীর দরবার শরীফে যাত্রীবাহী বাস যাওয়ার কারণে গাড়ির চাপ বেড়ে গেছে।