বৈপ্লবিক অগ্রগতি হয়েছে ইস্পাত শিল্পে

কামরুল ইসলাম পাপ্পু

বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন করছি আমরা। গত পাঁচ দশকে বাংলাদেশ অভূতপূর্ব অগ্রগতি অর্জন করেছে। উন্নয়নের ক্ষেত্রে আমাদের অর্জন বিস্ময়কর। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্ব, অগ্রমূখী উন্নয়ন কৌশলে বাংলাদেশ দারিদ্রপীড়িত একটি দেশ থেকে বিশ্বের দ্রুত বর্ধমান অর্থনীতির একটি দেশে উন্নীত হয়েছে।

মেগাপ্রকল্প আর দেশজুড়ে অকাঠামো নির্মাণযজ্ঞে দৃশ্যমান হয়ে উঠেছে দেশের উন্নয়ন সাফল্য। অব্যাহত এ সাফল্যে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে যাচ্ছে ইস্পাতশিল্প। বড় বড় প্রকল্প, দ্রুত নগরায়ণ এবং মানুষের জীবনযাত্রার মান বৃদ্ধি এ খাতে বড় চাহিদা তৈরি করেছে। সেই চাহিদা পূরণে বিনিয়োগও বেড়েছে।

ইস্পাত শিল্প এখন বাংলাদেশের সম্ভাবনাময় একটি শিল্প। এ শিল্প দেশের সুফল বয়ে আনবে। মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত এ দেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নতির চূড়ান্ত পথে রয়েছে। স্টিল/ইস্পাত শিল্প মানুষের মেরুদণ্ডের মতো। মানুষ যেমন মেরুদণ্ডের ওপর টিকে থাকে, তেমনই ভবন দাঁড়িয়ে থাকে স্টিলের ওপর।

দেশে ইস্পাতের বাজার বাড়ছে। সরকারের সুরক্ষা নীতির কারণে ব্যবসায়ীরাও এই খাতে বিনিয়োগ করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করছেন। বাংলাদেশে ইস্পাতশিল্পের সম্ভাবনা অত্যন্ত উজ্জ্বল। সভ্যতার অগ্রযাত্রায় ইস্পাতের রয়েছে বড় অবদান। দেশকে আরও সমৃদ্ধির পথে নিয়ে যেতে হলে ইস্পাতের ব্যবহার বাড়াতেই হবে। সরকারের উদ্যোগে সড়ক ও রেলসহ অবকাঠামো খাতে বড় বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন ও আবাসন খাতে গতি ফেরায় প্রভাব পড়ছে ইস্পাত শিল্পে। ইস্পাতের চাহিদা বাড়ায় বড় প্রতিষ্ঠানগুলো বাড়াচ্ছে তাদের উৎপাদন ক্ষমতা। নতুন বিনিয়োগ নিয়েও আসছে অনেকে। বর্তমানে দেশে ব্যবসাবান্ধব পরিবেশে সরকারের নীতি সহায়তা অব্যাহত থাকলে ইস্পাতশিল্পের সুবর্ণ অগ্রযাত্রা অদূর ভবিষ্যতে দৃশ্যমান হয়ে উঠবে।

একটা দেশের উন্নয়ন বিবেচনা করা হয় সে দেশের স্টিল ব্যবহারের ওপর। কতটুকু তারা স্টিল ব্যবহার করে, সে বিষয়ে। সেদিক থেকে আমরা অনেক এগিয়েছি। এই শিল্প খাতের বর্জ্য শতভাগ রিসাইক্লিং। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, উন্নয়নের হাইওয়েতে আমরা। কিন্তু আমাদের দেশে আরো অনেক উন্নয়নের দরকার। ৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে হলে সবাইকে একত্রে কাজ করতে হবে। প্রবৃদ্ধি ধরে রাখার জন্য সরকারের পলিসি আছে, দেশের শিল্পপতিদের জন্যও পলিসি আছে। শিল্পের উন্নয়ন হলে দেশেরও উন্নয়ন হবে। স্বাধীনতার পর সরকার শিল্প খাতের উন্নয়নে যেভাবে এগিয়ে এসেছে, দেশের মানুষ পরিবর্তন হয়েছে।

পৃথিবীর যত দেশ উন্নয়নের মহাসড়কে গিয়েছে, স্টিল সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন হয়েছে। আর তখনই দেশ এগিয়ে যায়। এখন দক্ষিণ কোরিয়া সবচেয়ে বেশি স্টিল ব্যবহার করে। মাথাপিছু স্টিল ব্যবহার প্রায় এক হাজার ৪৭ কেজি। বাংলাদেশে আমরা ব্যবহার করি মাথাপিছু ৪৫ কেজি। কিন্তু দেশে প্রতিবছর স্টিলের ব্যবহার বাড়ছে। সেটার কারণ আমাদের দেশে উন্নয়ন হচ্ছে। স্টিল ব্যবহারে বাংলাদেশ বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর তুলনায় বহু পিছিয়ে থাকলেও এই অবস্থার দ্রুত পরিবর্তন ঘটতে যাচ্ছে। দেশে স্টিল ব্যবহার অতীতের যে কোন সময়ের তুলনায় বেড়েছে। দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতির সাথে পাল্লা দিয়ে অবকাঠামোগত উন্নয়নে বিরাট ভূমিকা রাখছে ইস্পাত। সময়ের ব্যবধানে বৈপ্লবিক অগ্রগতি হয়েছে ইস্পাত শিল্পে। গত ১২ বছরে তিনগুণেরও বেশি চাহিদা বেড়েছে ইস্পাতের।

উদীয়মান অর্থনীতির দেশ বাংলাদেশে স্টিলশিল্প গুরুত্বপূর্ণ। এই স্টিল একটি গুরুত্বপূর্ণ শিল্প। দেশের অর্থনীতি বড় হচ্ছে, দেশও এগিয়ে চলছে। পদ্মা সেতু, মেট্রো রেলের মতো বড় বড় মেগা প্রকল্প চলমান। ব্যবসা-বাণিজ্যের সম্প্রসারণ ঘটছে। অবকাঠামোগত উন্নয়নও চলছে। দেশের অবকাঠামো বা মেগা প্রকল্পে দেশীয় ইস্পাতশিল্পের আরো সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

দেশের এই শিল্পকে উৎসাহিত করতে সরকারের নীতি সহায়তা প্রয়োজন। দেশি শিল্পকে উৎসাহিত করতে বিদ্যমান নানা সমস্যার সমাধান করতে হবে। একটি শিল্পে নানা সমস্যা থাকতে পারে কিন্তু সেটিকে এগিয়ে নিতে সরকারকে এগিয়ে আসতে হবে। নীতি-সহায়তা দিয়েও দেশীয় শিল্পকে টিকিয়ে ও এগিয়ে নিতে হবে সরকারকে।

যেকোনো দেশের উন্নয়নের জন্য ইস্পাতের গুরুত্ব অপরিসীম। কিন্তু তার জন্য দরকার গুণগত মানের ইস্পাত। আমরা চাইলে আমাদের দেশে যাঁরা ইঞ্জিনিয়ার আছেন তাঁদের কাজে লাগিয়ে ভালো মানের রড উৎপাদনের মাধ্যমে বিদেশে রপ্তানি করে অনেক বৈদেশিক মুদ্রাও অর্জন করতে পারি। আমাদের দেশে ইস্পাত গবেষণাকেন্দ্র স্থাপনের মাধ্যমে মানসম্মত রড উৎপাদন এখন সময়ের দাবি।

সভ্যতা শুরুই হয়েছে ইস্পাত দিয়ে। ইস্পাতের পরিধি এত বড় যে আমরা আজ যেই মাইক্রোফোন দিয়ে কথা বলছি এর মধ্যেও লোহা আছে। দেশ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, সেই এগিয়ে যাওয়া থামবে না। ২০৫০ পর্যন্ত চলবে। এর জন্য ইস্পাতের প্রয়োজন আছে। ইস্পাতশিল্প হলো একটা দেশের উন্নয়নের হাতিয়ার। এই শিল্পকে বাদ দিয়ে উন্নয়নের কথা চিন্তাই করা যায় না। তাই আমাদের দেশে বিদেশি যাঁরা এ খাতে বিনিয়োগ করেন তাঁদের আমরা সাধুবাদ জানাই। পাশাপাশি আমাদের দেশীয় বিনিয়োগকারীদেরও এগিয়ে এসে কিভাবে এটাকে আরো উন্নতি করা যায় তা চিন্তা করা প্রয়োজন।

স্টিল নিয়ে আমাদের অগ্রগতি সন্তোষজনক। বিভিন্ন কারখানা সর্বাধুনিক নানা প্রযুক্তি ব্যবহার করে স্টিল পণ্য উৎপাদন করছে। মানসম্পন্ন স্টিল উৎপাদন আমাদের হাজার হাজার কোটি ব্যয়ে গড়ে তোলা অবকাঠামোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করছে। দেশে বিভিন্ন মেগা প্রকল্প গ্রহন এবং মানসম্পন্ন স্টিল উৎপাদন পুরো সেক্টরকে অন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছে।

ইস্পাত শিল্পের সম্প্রসারণ বাংলাদেশের সমাজে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন সাধন করেছে। এই খাতে অসংখ্য মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে। জাতীয় অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখা ছাড়াও ইস্পাত শিল্প থেকে সরকারের বিপুল পরিমাণ রাজস্ব আয় হচ্ছে।

লেখক: কলামিস্ট ও শিল্প উদ্যোক্তা, কর্ণধার- বন্দর স্টিল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড।