নির্বাচিত হয়েই চেয়ারম্যানের উদ্যোগে সড়ক সংস্কার

মোঃ লিহাজ উদ্দিন, (পঞ্চগড়):

চতুর্থ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন আব্দুর রহিম। গত ২৬ ডিসেম্বর হয়ে যাওয়া নির্বাচনে বিজয়ী হলেও এখনো দায়িত্ব বুঝে পাননি তিনি। কিন্তু শপথ গ্রহণের আগেই ইউনিয়নের একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়কের বেহাল দশা নিরসনে উদ্যোগ নিয়েছেন তিনি। আব্দুর রহিম তার নির্বাচনী কর্মীদের নিয়ে প্রায় দুই কিলোমিটার সড়কে স্বেচ্ছাশ্রমে মাটি ভড়াট করেছেন। নবনির্বাচিত এই চেয়ারম্যানের এমন উদ্যোগে আনন্দিত ইউনিয়নবাসীও।

আব্দুর রহিম পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার বড়শশী ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান। তিনি গত ২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত চতুর্থ ধাপের ইউপি নির্বাচনে পাঁচ হাজার ৩৬২ ভোটে বিজয়ী হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী।

গতাকল (১৩ জানুয়ারি) বৃহস্পতিবার দিনব্যাপী আব্দুর রহিম এবং তার লোকজন বড়শশী ইউনিয়নের বকদুলঝুলা থেকে পূর্বদিকে ভাউলাগঞ্জমুখী দুই কিলোমিটার কাঁচা সড়ক সংস্কার করেন। তাদের সঙ্গে অংশ নেন নবনির্বাচিত ইউপি সদস্যরাও।

স্থানীয়রা জানান, ইউনিয়নের একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক হলেও বিগত দিনে এটি সংস্কারে কোন উদ্যোগ দেখায়নি দায়িত্বশীলরা। নতুন চেয়ারম্যানের এই উদ্যোগে এখন অনেকটাই ভোগান্তি দুর হবে পথচারীদের।

চেয়ারম্যানের সঙ্গে স্বেচ্ছাশ্রম দেয়া শাখাওয়াত হোসেন বলেন, এসব সড়ক সংস্কারের জন্য ইউনিয়ন পরিষদে সরকারি অনেক বরাদ্দ আসে কিন্তু কোন বরাদ্দই এই সড়কে জোটেনা। নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মহোদয় যে উদ্যোগ নিয়েছেন তা সত্যিই প্রশংসনীয়। কারণ, তিনি দায়িত্ব না পেতেই জনকল্যাণ মূলক কাজ শুরু করেছেন।

নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য (৩ নং ওয়ার্ড) আব্দুল ওয়াহাব বলেন, আমরা আমাদের চেয়ারম্যান মহোদয়ের নেতৃত্বে এরকম জনকল্যাণ মূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাবো। আমরা চাই একটি মডেল ইউনিয়ন পরিষদ গড়তে।

নবনির্বাচিত ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বলেন, জনপ্রতিনিধিদের কাজই জনকল্যাণমূলক কাজ করা। এজন্য বরাদ্দ পাবার অপেক্ষায় থাকতে হবে এমনটা নয়। প্রয়োজন শুধু উদ্যোগ নেবার মনমানসিকতা। জনগণ আমাকে পাঁচ বছরের জন্য চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেছেন। আমি এখনো দায়িত্ব বুঝে পাইনি। ইনশাআল্লাহ পাঁচ বছর জনগনের সেবক হয়েই থাকবো। বরাদ্দ থাক বা না থাক মানুষের ভোগান্তি দুর করতে আমার ভূমিকা থাকবেই।